নিজের প্রা’ণ বা’জি রেখে বিষধর কোবরা’র সাথে তুমুল ল’ড়াই করল কুকুর ছানা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

এবার জনপ্রিয় এক গীতিকারের ঘরের মধ্যে পাওয়া গেল এক বিশালাকৃতির বিষধর কোবরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই দৃশ্য রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। ছত্রিশগড়ের ওই গীতিকারের বাড়িতে বিষধর কোবরা উদ্ধার হওয়া এলাকায় যথেষ্ট চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। সাপ মানেই মিঠুন চক্রবর্তীর একটি ডায়লগ আমাদের মনে পড়ে, “এক ছোবলেই ছবি”।

যদিও সব সাপের বিষ থাকে না। পৃথিবীতে বেশিরভাগ সাপ বিষহীন সাপ। কিন্তু যে ক’টি সাপ বিষধর তাদের বিষ সত্যিই জীবনের পক্ষে হানিকারক। প্রতিদিন সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে সাপের ভিডিও বেশ ভাইরাল হয়।

সাপ মানেই হলো ভয়ঙ্কর এক প্রাণী। এই এক প্রাণীর ওপর মানুষের ভয় এবং ভক্তি উভয়ই বর্তমান। কারণ সাপ দেবাদিদেব মহাদেবের কন্ঠে অবস্থান করে। দেবী দুর্গার হাতেও দেখা যায় সাপ।অন্যদিকে নাগলোকের বা পাতাল লোকের দেবী হলেন মা মনসা। প্রতিটি গ্রাম অঞ্চলে মা মনসার পূজা করে গ্রামবাসীরা। বছরের একটি বিশেষ সময়ে অর্থাৎ দশহরার সময় দেবাদিদেব মহাদেবের মানস কন্যা মা মনসার পূজা হয়ে থাকে।

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের মতানুসারে, বিশ্বে প্রায় তিন হাজার প্রজাতির সাপ রয়েছে। তাদের মধ্যে প্রায় ৬০০ টি প্রজাতির সাপ বিষাক্ত।

সারা বিশ্বজুড়ে প্রতি বছর আনুমানিক ৫৪ লক্ষ মানুষ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়। সাপের কামড়ের কারণে প্রত্যেক বছর প্রায় ৮১,০০০ থেকে ১,৩৩,০০০ মানুষ মারা যায়। এদের মধ্যে বেশিরভাগ আফ্রিকা,

এশিয়া এবং লাতিন আমেরিকার বাসিন্দা। ভারতবর্ষেও সাপের কামড়ের মৃত্যুর সংখ্যা নেহাত কম নয়। প্রায় দিনই এমন ঘটনা ঘটে থাকে বেশিরভাগ গ্রামাঞ্চলের দিকে।

এবার ইউটিউবে এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হলো যা দেখে কার্যত গা শিউরে ওঠার জোগাড় সাধারণ মানুষের। তক্তপোশের নিচে গুটিসুটি মেরে বসে রয়েছে বিশাল আকৃতির এক কোবরা।

সেই সাপকে উদ্ধার করতে হিমশিম খেয়ে গেল বাড়ির লোকজন। সাপ ধরার জন্য ডাক্তার বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিকে। যেকোনো সময় প্রাণসংশয় ঘটার কারণ হতে পারতো এই সাপটি।

কিন্তু ওই গীতিকারের বাড়ির লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে তৎক্ষনাৎ খবর দেন সাপ ধরতে বিশেষজ্ঞ এক ব্যক্তিকে। ঘটনাটি ছত্রিশগড় রাজ্যের। গীতিকারের বাড়িতে সাপ ধরতে উপস্থিত হন বেশ কয়েকজন ব্যক্তি।

কেকো ঘরের মধ্যে প্রবেশ করতেই তারা দেখেন তক্তপোশের নিচে ফনা তুলে বসে রয়েছে একটি কোবরা। এরপর ওই ব্যক্তি নিজের হাতে থাকা একটি লাঠি দিয়ে সব থেকে ধীরে ধীরে তক্তপোশের নিচ থেকে বার করে আনেন।

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন….

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*