শুধু টেকনাফ থেকেই ওসি প্রদীপ নিয়ে গেছেন প্রায় ২০০ কোটি টাকা

ফ্রেন্ডশিপ ডে উপলক্ষে ফেসবুকে নিজের বন্ধুর সঙ্গে ছবি দেওয়ায় আ’গুনে পুড়ে খু’ন হতে হলো এক গৃহবধূকে। নি’র্মম এই ঘটনাটি ঘটেছে ভা’রতের কালনার বড়ঘড়ি এলাকায়। এলাকাটির বাসিন্দা ও এক বেসরকারি সংস্থার মালিক অ’ভিজিৎ বর্মনের সঙ্গে পায়েলের বিয়ে হয় ১০ বছর আগে।

বিয়ের পর থেকে পণসহ একাধিক দাবিতে পায়েলের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করত স্বামী ও বাড়ির অন্য লোকেরা। স্বাভাবিকভাবেই পণ নিয়ে যে পায়েলের শ্বশুরবাড়িতে ক্ষোভ রয়েছে, তা বুঝতে সময় লাগেনি। তবুও সংসারে মে’য়েকে মানিয়ে চলারই পরাম’র্শ দিয়েছিলেন পায়েলের বাবা-মা। এরই মধ্যে দম্পতির এক সন্তান জন্ম নেয়। কিন্তু তাতেও অ’ত্যাচার কমেনি শ্বশুরবাড়ির পক্ষ থেকে। বরং দিন দিন তা চরমে ওঠে।

কয়েকদিন আগে একটি রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়েছিলেন পায়েল। সেখানে তার এক পুরনো বন্ধুর সঙ্গে দেখা হয়। সেই বন্ধুর সঙ্গে নিজের সন্তান ও পরিবারের কয়েকজনকে নিয়ে একটি ছবি তোলেন। ফ্রেন্ডশিপ ডে-তে ফেসবুকে সেই ছবি পোস্ট করেছিলেন তিনি। এটাই তার অ’প’রাধ। এই কারণেই অ’ত্যাচারের সীমা ছাড়ায় শ্বশুরবাড়িতে। অ’ভিযোগ চলতে থাকে স্বামীর নিয়মিত মা’রধর। এরপর গতকাল তা চরমে গেলে পায়েলের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আ’গুন লাগিয়ে দেয় স্বামী অ’ভিজিৎ।

এরপর রাতেই প্রতিবেশি ও বাপের বাড়ির লোকেরা তাকে হাসপাতা’লে নিয়ে গেলেও পায়েলকে বাঁ’চানো যায়নি। হাসপাতা’লেই ভোর রাতে মৃ’ত্যু হয় তার। পায়েলের বাপের বাড়ির লোকজনের অ’ভিযোগের ভিত্তিতে ইতোমধ্যে কালনা থা’নার পু’লিশ শাশুড়ি-সহ দু’জনকে আ’ট’ক করেছে। কিন্তু মূল অ’ভিযু’ক্ত স্বামী অ’ভিজিৎ বর্মন এখনও পলাতক। তার খোঁজে তল্লা’শি শুরু করেছে পু’লিশ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*